1. jashimsarkar1980@gmail.com : admin : jashim sarkar
  2. naim@vinnabarta.com : admin_naim :
  3. admin_pial@vinnabarta.com : admin_pial :
  4. admin-1@vinnabarta.com : admin : admin
  5. admin-2@vinnabarta.com : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. admin-3@vinnabarta.com : Saidul Islam : Saidul Islam
চরফ্যাশনে ২৪ বাড়ি লকডাউন - |ভিন্নবার্তা




লালমোহনে ভিক্ষুকের খাদ্য আত্মসাৎ!

চরফ্যাশনে ২৪ বাড়ি লকডাউন

ভিন্নবার্তা প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২০ ২:০৩ অপরাহ্ন

ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে চরফ্যাশনে আসা ব্যক্তিদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কায় ২৪ বাড়ি লকডাউন করেছে প্রশাসন।

চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বলেন, জেলা প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপের কারণে দ্বীপজেলা ভোলাবাসী প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস থেকে এখনও নিরাপদে আছে। আক্রান্ত জেলা থেকে চরফ্যাশনে আসা ২৪ পরিবারকে লাল পতাকা টানিয়ে দিয়ে লকডাউন করা হয়েছে।

লকডাউন তালিকায় রয়েছে- চরফ্যাশন পৌরসভায় ২টি, নীলকমল ইউনিয়নে ১০টি, চর কলমি ইউনিয়নে ১টি, হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নের ৩টি, আসলামপুর ইউনিয়নে আয়শাবাগ গ্রামের ৮টি বাড়ি।

আক্রান্ত ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে শুক্রবার নাগাদ তাদের নিকটাত্মীয় স্বজনরা গোপনে এসব বাড়িতে আসেন। প্রশাসন খবর পেয়ে উক্ত বাড়িগুলোতে হাজির হয়ে লাল পতাকা টানিয়ে লকডাউন করে দিয়েছে।

এদিকে ভোলার লালমোহনে নসু খা নামের এক নেতা ৫-৬ জন ভিক্ষুকসহ অন্তত ১৫ জন অসচ্ছল দরিদ্র ব্যক্তির ত্রাণ সহায়তার খাদ্য সামগ্রী আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন জুয়েল হাওলাদার নামক এক ইউপি সদস্য। গত মঙ্গলবার উপজেলার ১নং বদরপুর ইউনিয়নে এই ঘটনা ঘটে।

ওই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার অভিযোগকারী জুয়েল হাওলাদার বলেন, গত সোমবার বদরপুর ইউনিয়নে লকডাউনে ঘরবন্দি হয়ে পরা অসচ্ছল ব্যক্তিদের মাঝে চাল, ডাল, সয়াবিন তেল ও সাবানসহ খাদ্য সামগ্রী বিতরণের জন্য ওয়ার্ড পর্যায় থেকে তালিকা জমা নেন ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল হক তালুকদার। সে অনুযায়ী ৫নং ওয়ার্ডে থেকে ৩০ জনের তালিকা জমা দেয়া হয়। ওই ৩০ জনের তালিকায় মর্জিনা বেগম (৬০), রিজিয়া বেগম (৪০), চন্দ্র ভানু (৪২), ৫-৬ জন ভিক্ষুকের নাম রয়েছে।

তিনি বলেন, গত মঙ্গলবার ভুক্তভোগীরা খাদ্য সামগ্রী নিতে পরিষদে গেলে তাদের মধ্যে ১৫ জন খালী হাতে ফিরে আসে। পরে ভুক্তভোগীদের প্রতিবাদ শুরু হলে জানতে পারি, ৫নং ওয়ার্ডে নাসু খা নামের জনৈক নেতা প্রক্সি দিয়ে ১৫ জনের খাদ্য সামগ্রী নিয়ে গেছেন। বিষয়টি জানার পর চেয়ারম্যান ফরিদুল হক তালুকদার বঞ্চিত এসব ভুক্তভোগীদের খাদ্য সামগ্রী পুণরায় দেয়ার আশ্বাস দিলে সেখান থেকে বাড়ি ফিরে যান ভুক্তভোগীরা।

এ বিষয়ে জানার জন্য অভিযুক্ত নাসু খা’কে মুঠোফোনে কয়েকবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল হক তালুকদার জানান, দরিদ্রদের ত্রাণ সামগ্রী আত্মসাৎকারী নসুখা’র বিচার হবে।

ভিন্নবার্তা ডটকম/প্রতিনিধি/এসএস

 



আরো




মাসিক আর্কাইভ