শিরোনাম

গণপরিবহনে ভাড়া নৈরাজ্য বন্ধের দাবি

দেশব্যাপী চলমান গণপরিবহনে যাত্রী-শ্রমিক হাতাহাতি, মারামারিসহ ভাড়া নৈরাজ্য ও যাত্রী হয়রানি বন্ধে করোনা সংকটকালীন বাসের ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া অনতিবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতি।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংগঠনের মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী এ দাবি জানান।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ সংকটে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চালানোর জন্য বাসের ভাড়া একলাফে ৬০ শতাংশ বাড়ানো হলেও এখন দেশের কোনো গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। ভাড়া বেশি নেয়া হলেও সেই পুরনো কায়দায় গাদাগাদি করে যাত্রী বহন করা হচ্ছে। এতে করোনা সংকটে কর্মহীন ও আয় কমে যাওয়া দেশের সাধারণ মানুষের যাতায়াত দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। এতে করে সারাদেশে প্রায় প্রতিটি রুটে চলাচলকারী গণপরিবহনে যাত্রী-শ্রমিক বসচা, হাতাহাতি ও মারামারি চলছে।

উল্লেখ্য, সরকার করোনার সংকটে থাকা দেশের সাধারণ জনগণের ওপর একচেটিয়াভাবে বাসের ভাড়া ৬০ শতাংশ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়। সরকারি এ ঘোষণায় পরিবহনসংশ্লিষ্ট অসাধু চক্র দেশব্যাপী চলাচলরত বাস-মিনিবাসের সঙ্গে লেগুনা, হিউম্যান হলার, টেম্পোসহ সব ধরনের যানবাহনের ভাড়া প্রায় দ্বিগুণ করে ফেলে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীসাধারণ।

এমতাবস্থায় বর্ধিত বাসভাড়া কমানোর দাবি জানিয়েছে যাত্রীকল্যাণ সমিতি।

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুুন