শিরোনাম

আইইডিসিআরে ফোন, মজা করতে গিয়ে সাজা

দেশে সম্ভাব্য করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও উপসর্গ আছে এমন ব্যক্তিদের তথ্য এবং সেবাপ্রদান নিশ্চিত করতে আইইিডিসিআর কিছু হটলাইন নম্বর দিয়েছে। সেই নম্বরে মজা করতে গিয়ে হোম কোয়ারেন্টিন দেওয়া হয়েছে এক যুবককে। গত বৃহস্পতিবার বিকালে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলা সদরের বড়হাটি গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নুরুল ইসলামের ছেলে আবুল খায়ের উজ্জল (৩০) নামের এক যুবক আইইডিসিআরের হটলাইনে ফোন করে নারীর কণ্ঠ শুনতে পান। হটলাইনে নারীর সঙ্গে কথা দীর্ঘ করতে ও মজা করতে শরীর ব্যাথা, সর্দি-জ্বরের কথা জানান ওই যুবক।

হটলাইনে কথা বলা ওই নারী উজ্জলের নাম, ঠিকানা জেনে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিতে স্থানীয় প্রশাসনকে জানান। আইইডিসিআরের নির্দেশনা পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামছুদ্দিন মুন্না, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পুলিশ নিয়ে ওই যুবকের বাড়িতে হাজির হন। সঙ্গে সঙ্গে যুবককে ১৫ দিনের হোম কোয়ারেন্টিন দিয়ে বাড়িতে স্টিকার লাগানো হয়। এ ঘটনায় পরিবারটির সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ রেখেছে প্রতিবেশীরা।

মজা করতে গিয়ে সাজা ভোগ করার কথা স্বীকার করেছেন কোয়ারেন্টিনে থাকা যুবক উজ্জল। এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়ালে উপজেলাজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. খান নুরুদ্দীন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর বলেন, ‘উজ্জল স্থানীয় হাসপাতালে যোগাযোগ না করেই আইইডিসিআরের হটলাইনে যোগাযোগ করেছেন। এখন আমরা ঊর্ধ্বতনের নির্দেশে উজ্জল ও তার পরিবারের সকল সদস্যের করোনা সম্পর্কীয় সকল পরীক্ষার ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
আরো পড়ুুন