1. [email protected] : admin : jashim sarkar
  2. [email protected] : admin_naim :
  3. [email protected] : admin_pial :
  4. [email protected] : admin : admin
  5. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটের সামনেই ময়লার ভাগার, জনমনে ক্ষোপ - |ভিন্নবার্তা

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটের সামনেই ময়লার ভাগার, জনমনে ক্ষোপ

vinnabarta.com
  • প্রকাশ : রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ০৭:১৩ pm

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডসহ পুরো মেডিকেলের বর্জ্য অপসারণ বন্ধ হয়ে গেছে। এতে বিপাকে পড়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটের পাশে খোলা জায়গায় বর্জ্য ফেলায় এলাকাটি পরিণত হয়েছে ময়লার ভাগারে। এতে জরুরি বিভাগের গেটসহ আশেপাশের এলাকায় অসহনীয় পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। ভুক্তভোগীরা দ্রুত ময়লার ভাগার সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

শের-ই বাংলা মেডিকেলের পাঁচটি প্রবেশ পথের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জরুরি বিভাগের গেট। দিনরাত এখান থেকে মেডিকেলে যাতায়াত করেন হাজারো রোগী, স্বজন, ডাক্তার-নার্স-কর্মচারী। অথচ এই সড়কের পাশে খোলা জায়গায় গত পাঁচ মাস ধরে পুরো মেডিকেলের বর্জ্য ফেলে হয়েছে। এর মধ্যে করোনা ওয়ার্ডের বর্জ্যও রয়েছে।

বর্ষা আক্তার নামে এক রোগীর স্বজন বলেন, দুর্গন্ধে রোগীরা আরও অসুস্থ হয়ে পড়ছে। সাধারণ মানুষের এখান দিয়ে হাঁটা মুসকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। মেডিকেলের সামনে জায়গা আরও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত।

রোগী সুমাইয়া আক্তার বলেন, জরুরি বিভাগের প্রবেশ পথে ময়লা ফেলায় চরম দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। দুর্গন্ধের কারণে এই পথে চলাচলের মতো অবস্থা নেই।

পথচারী আব্দুল মালেক বলেন, ময়লার স্তুপের মধ্যে করোনা ওয়ার্ডের বর্জ্যও আছে। মেডিকেলের বর্জ্যে দুর্গন্ধ এবং জীবাণু ছড়িয়ে পড়ে মহামারির মধ্যে আরও বড় ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে বলে আশঙ্কা তার।

শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, করোনার শুরু থেকে আতঙ্কের কারণে সিটি করপোরেশন বর্জ্য নেওয়া বন্ধ করে দেয়। এতে বিপাকে পড়েন তারা। বাধ্য হয়ে ক্যাম্পাসের মধ্যে গর্ত করে ময়লা রাখেন। শুকিয়ে গেলে সেগুলো পুড়িয়ে ফেলেন, আর ভিজা থাকলে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে দুর্গন্ধ দূর করার চেষ্টা করেন।

জনদুর্ভোগের বিষয়টি নিয়ে মেডিকেলের পরিচালক সিটি মেয়রের সাথে কথা বলছেন। সিটি মেয়র মানবিক কারণে শিগগিরই মেডিকেলের বর্জ্য অপসারণে পদক্ষেপ নেবেন বলে আশা তাদের।

তবে মেডিকেলের জরুরি বিভাগের পাশে বর্জ্যের স্তুপ করে রাখার বিষয়ে সিটি করপোরেশন কিছুই জানে না বলে দাবি করেন প্যানেল মেয়র-১ গাজী নঈমুল হোসেন লিটু।

তিনি বলেন, মেডিকেল কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কিছুই জানায়নি। তারা সিটি করপোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাকে ফোনে বলতে পারতো, নগর ভবনকে চিঠি দিতে পারতো। তারা কোনো অফিশিয়াল নিয়ম-কানুনও ফলো করেনি। সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত স্থানে ময়লা ফেললে পরিচ্ছন্ন কর্মীরা রাতে সেগুলো ট্রাকে অপসারণ করে।

করোনা ওয়ার্ডসহ পুরো হাসপাতালে দৈনিক গড়ে ৫ থেকে ৭ টন বর্জ্য হয় বলে জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তা ডা. মো. রবিউল ইসলাম।

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুন

মাসিক আর্কাইভ

© All rights reserved © 2021 vinnabarta.com
Customized By Design Host BD