1. [email protected] : admin : jashim sarkar
  2. [email protected] : admin_naim :
  3. [email protected] : admin_pial :
  4. [email protected] : admin : admin
  5. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
শ্যালিকার প্রেমে স্ত্রীকে হত্যা! ১০ মাস পর মিলল কঙ্কাল - |ভিন্নবার্তা

শ্যালিকার প্রেমে স্ত্রীকে হত্যা! ১০ মাস পর মিলল কঙ্কাল

vinnabarta.com
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৫ অগাস্ট, ২০২১, ০৮:৩৪ অপরাহ্ন

ঢাকার কেরানীগঞ্জে শ্যালিকার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে স্ত্রীকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যার পর লাশ গুম করার ঘটনায় ১০ মাস পর হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে নিহতের কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় গ্রেপ্তার স্বামীর দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তেঘরিয়া ইউনিয়নের কদমপুর এলাকার ভাড়া বাসার পাশের পুকুরে তল্লাশি চালিয়ে নিহত মোহনার লাশের হাড়, মাথার খুলি, চুলের কিছু অংশ ব্যবহৃত কাপড়সহ বেশ কিছু আলামত উদ্ধার করে পুলিশ। কঙ্কালের অংশ ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, নিহতের স্বামী ইকবাল হোসেনের তথ্য মোতাবেক দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন চরকদমপুর এলাকার একটি ডোবা থেকে গত ১৫ জুন সকালে কয়েক টুকরা হাড় উদ্ধার করেছিলাম। এরপর কয়েকদিন তল্লাশি চালিয়েও কোনো সুরাহা পাওয়া যায়নি। পরে ইকবালের দেওয়া তথ্য সন্দেহ মনে হলে তাকে পুনরায় আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এবার তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে লাশ গুমের স্থান দেখিয়ে দেয়।

তিনি আরো বলেন, পূর্বের উদ্ধার করা হাড় ও আজকের উদ্ধারকৃত কঙ্কাল একই জনের কি-না এবং উদ্ধারকৃত কঙ্কালের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সংরক্ষণ করা হয়েছে।

নিহত মোহনার মা রহিমা বেগম বলেন, আমার দুই মেয়ে মোহনা ও আরিফা। ২০১৬ সালের আগস্ট মাসে ইকবালে সাথে আমার বড় মেয়ে মোহনার বিয়ে দিই। এরপর ছোট মেয়ে আরিফাকে মাদরাসায় ভর্তি করে দিয়ে জীবিকার তাগিদে আমি দেশের বাইরে চলে যাই। আমার ছোট মেয়ে আরিফা মাদরাসা ছুটিতে বড় বোনের বাড়িতে আসলে তার বোন জামাই ইকবালের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে যায়। বড় মেয়ের সংসার বাঁচাতে আমি বিদেশ থেকেই ছোট মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দিই। সেখান থেকেও একবার ইকবাল ছোট মেয়েকে ফুঁসলিয়ে বের করে নিয়ে আসে। আত্মীয়-স্বজনের সহায়তায় বিষয়টি মীমাংসা করার চেষ্টা করা হয়।

তিনি আরো বলেন, এর মধ্যে গত বছর ২২ নভেম্বর আমি জানতে পারি আমার বড় মেয়ে নিখোঁজ। ঘটনার ৭ মাস পর গত দেশে ফিরে ১৪ জুন থানায় অভিযোগ দায়ের করি। পরে পুলিশ কেরানীগঞ্জ মডেল থানার রামেরকান্দা এলাকা থেকে ইকবালকে আটক করে এবং আমার বাড়ি থেকে আমার ছোট মেয়ে আরিফাকেও আটক করে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কেরানীগঞ্জ সার্কেল) সাহাবুদ্দিন কবির এ ব্যাপারে বলেন, নিহতের স্বামী হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। তবে সে লাশের ব্যাপারে বারবার ভুল তথ্য দিচ্ছিল। পরে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ডোবা থেকে জাল টেনে কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়।

ভিন্নবার্তা ডটকম/পিকেএইচ

আরো পড়ুন

মাসিক আর্কাইভ

© All rights reserved © 2021 vinnabarta.com
Customized By Design Host BD