1. [email protected] : admin : admin
  2. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  3. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
  4. [email protected] : admin : jashim sarkar
  5. [email protected] : admin_naim :
  6. [email protected] : admin_pial :

শিক্ষার্থীর পায়ে গরম চা ঢেলে হাত মচকে দেওয়ার অভিযোগ ছাত্রলীগ নেত্রীর বিরুদ্ধে

ভিন্নবার্তা প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ৪:৩৬ pm

পাঠকক্ষে ঢোকার জায়গা চাওয়াকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বাকবিতণ্ডার জেরে রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজের এক শিক্ষার্থীর পায়ে গরম চা ঢেলে দিয়ে হাত মচকে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে কলেজ ছাত্রলীগের এক নেত্রীর বিরুদ্ধে। সোমবার সন্ধ্যায় কলেজের শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী নিবাসের ৩১৩ নম্বর কক্ষে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় হল সুপার নাজমুন নাহার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী। তবে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেত্রী তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ওই ছাত্রলীগ নেত্রীর নাম আয়েশা ইসলাম মীম। তিনি কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের অনুসারী তিনি। অন্যদিকে, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ২০১৬-১৭ সেশনের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার সকাল নয়টার দিকে হলের পাঠকক্ষে প্রবেশের জায়গা দখল করে মীমের অনুসারী এক শিক্ষার্থী টেবিল বসিয়ে পড়ছিল। এতে চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী তাকে সরে বসতে বলেন। এ সময় উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মীমের অনুসারী ভুক্তভোগীকে বলেন, ‘আমি দেখে নেব কীভাবে তুমি এই কলেজে পড়ো।’ এরপর সন্ধ্যার দিকে ভুক্তভোগী তার কক্ষে বসে বড় একটি মগে চা পান করছিলেন। হঠাৎ আয়েশা ইসলাম মীম ১০ থেকে ১২ কলেজ ছাত্রলীগ কর্মী নিয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর কক্ষে প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। গালিগালাজের একপর্যায়ে মগে থাকা গরম চা তার পায়ে ঢেলে দেন এবং হাত মচকে দেন। পরে কক্ষের সবাইকে বের হয়ে যেতে বলেন মীম। এসময় তিনি বলেন, ‘তোর এমন অবস্থা করবো যে তুই আত্মহত্যা করতে বাধ্য হবি।’ তবে ভুক্তভোগীর রুমমেটরা বের হতে অস্বীকৃতি জানালে আরও কিছুক্ষণ মানসিক নির্যাতন করে কক্ষ থেকে দলবলসহ বের হয়ে যান মীম। পরবর্তীতের রাত ১১টার পর মীম ও আরও কয়েকজনকে নিয়ে তামান্না জেসমিন রিভা ওই কক্ষে যান এবং বিষয়টি মীমাংসা করতে ভুক্তভোগীকে চাপ দেন।

কলেজ ছাত্রলীগের একাধিক নেত্রী বলেন, ‘মীম অনেক উগ্র মেজাজের। তিনি প্রায়ই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এ ধরনের খারাপ আচরণ করেন।’

ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের দায়িত্বে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তিলোত্তমা শিকদার বলেন, ‘বিগত কয়েকটি ঘটনায় আমরা যারা ইডেন কলেজের দায়িত্বে আছি, তারা কলেজ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কথা বলেছি, কয়েক ঘণ্টা তাদের কাউন্সেলিংও করিয়েছি। এরপরও তারা কেন এমন আচরণ করেন, সেইটা আমি বুঝতে পারছি না। এই বিষয়ে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বেনজির হোসেন নিশি বলেন, ‘আমি এখন এ বিষয়ে কথা বলার অবস্থায় নেই। এ বিষয়ে অন্যান্য দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের সঙ্গে কথা বলুন।’

তবে এ বিষয়ে ইডেনের দায়িত্বে থাকা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রানা হামিদকে কয়েকবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভড করেননি। তাকে ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি।

এ বিষয়ে আয়েশা ইসলাম মীম বলেন, ‘আমরা রাজনীতি করি তো, তাই আমাদের শত্রুর অভাব নেই। এ রকম কিছুই ঘটেনি। কেউ আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছে। আমি ঘটনাস্থলে ছিলামই না।’

কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা বলেন, ‘রিডিং রুমে টেবিল বসানো নিয়ে তাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে। এর সমাধান করা হয়েছে। এখন আর কোনো সমস্যা নেই।’

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে একাধিকবার ফোনে কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভড করেননি। এরপর তাকে ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি।

হল সুপার নাজমুন নাহার বলেন, অধ্যক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। আজ আমাদের মিটিং আছে। সেখানে এ বিষয়ে আলোচনা হবে। কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হলে আগামীকাল বুধবার বিস্তারিত জানা যাবে।

ইডেন কলেজের অধ্যক্ষ সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য বলেন, এ বিষয়ে আমরা জেনেছি। হোস্টেল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি দেখছে। আমরা ব্যবস্থা নেব।
ভিন্নবার্তা ডটকম/এন



আরো




মাসিক আর্কাইভ