1. [email protected] : admin : jashim sarkar
  2. [email protected] : admin_naim :
  3. [email protected] : admin_pial :
  4. [email protected] : admin : admin
  5. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
রৌমারীতে ৬ গ্রামের মানুষের চলাচলের চরম দুর্ভোগ - |ভিন্নবার্তা

রৌমারীতে ৬ গ্রামের মানুষের চলাচলের চরম দুর্ভোগ

vinnabarta.com
  • প্রকাশ : শনিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২০, ০৯:৪০ pm

কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলায় ঠিকাদারের গাফলতি ও স্থানীয় প্রশাসনের উদাসীনতার কারনে ৩ কিলোমিটার রাস্তা ৩ বছরেও মেরামত করা হয়নি। এতে সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করা হচ্ছে। পাশাপাশি বিজিবি’র টহলসহ ৬ গ্রামের মানুষের যাতায়াতের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সুত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের শেষের দিকে উপজেলার চর নতুনবন্দর স্থলবন্দর তুরা রাস্তা হতে সীমান্ত এলাকা দিয়ে খাটিয়ামারী কাদেরের বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার রাস্তা মাটি ভরাট ও সিসি ঢালাইয়ের জন্য ২ কোটি ৩৯ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। যা টেন্ডারের মাধ্যমে কুড়িগ্রামের মেসার্স ছাকিব ট্রেডার্স উক্ত কাজটি পায়। মেসার্স ছাকিব ট্রেডার্স’র মালিক প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার প্রোঃ মো.আহসানুল লিটন ওই রাস্তার পাশে জিঞ্জিরাম নদীর কিনারে প্রায় ১’শ গজ দৈর্ঘ্য গাইড ওয়ালও নির্মাণ করেন। পরবর্তীতে তিনি রাস্তার কাজ না করেই পালিয়ে যান। ২০১৯ সালে ওই রাস্তাটি মেরামতের জন্য কুড়িগ্রামের মোক্তার হোসেন নামের অপর এক ঠিকাদারকে দায়িত্ব দেওয়া হয় বলে জানা যায়। তিনিও সামান্য মাটির কাজ শুরু করেই বরাদ্দকৃত বিল উত্তোলনের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেন। বিষয়টি এলাকাবাসি তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দ্বীপঙ্কর রায়কে জানানো হলে তিনি বিল উত্তোলন বন্ধ করলে এ ঠিকাদার কাজ না করে চলে যান। রাস্তাটি বর্তমানে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই কাঁদার সৃষ্টি হয়। যানবাহন তো দুরের কথা পায়ে হেটেও যাতায়াত করা সম্ভব হচ্ছে না।

সীমান্ত এলাকার ওই রাস্তাটি মেরামত না করায় বাংলা বাজার ও মোল্লার চর বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা তাদের টহলে চরম দূর্ভোগে পড়েছেন। অপর দিকে চান্দার চর, নওদাপাড়া, ব্যাপারীপাড়া, বোল্লাপাড়া ও খাটিয়ামারীসহ ৬টি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষের যাতায়াতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। শনিবার (২৯ আগস্ট) সরেজমিনে গিয়ে এসব চিত্র ও তথ্য পাওয়া যায়।

উপজেলার সদর ইউনিয়নের চান্দার চর গ্রামের গোলাম রব্বানী জানান, দীর্ঘদিন থেকে রাস্তাটির বেহাল দশা হওয়ায় যাতায়াতে খুব কষ্ট হচ্ছে। যানবাহন চলাচলের অযোগ্য হওয়ায় কৃষকের কষ্টারজিত ফসল হাটে নিয়ে যেতে পারছে না। তাই উপজেলা প্রশাসনকে সুনজর দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

নওদাপাড়া গ্রামের আব্দুস ছবুর ফক্কু মিয়া বলেন, রাস্তাটি মেরামতের জন্য একাধিক ঠিকাদারকে দায়িত্ব দিলেও কাজটি হচ্ছে না। আমরা খুব কষ্টে যাতায়াত করছি।

খাটিয়ামারী গ্রামের আব্দুল হাকিম বলেন, আমাদের যাতায়াতের জন্য সরকার বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের উদাসীনতার কারনে কাজটি হচ্ছে না। আমরা আশা করি রাস্তার কাজটি যেন তাড়াতাড়ি করা হয়।

এ বিষয়ে ঠিকাদার মো.আহসানুল লিটনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, কাজটি আমি নিজে না করে ভুল করেছি। আমার সমস্যার কারনে মোক্তার হোসেন নামের আরেক ঠিকাদারকে রাস্তার কাজটি দিয়েছি। কিন্ত তিনিও টালবাহনা করছে।

রৌমারী সদর ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু বলেন, ঠিকাদারকে বারবার বলা হচ্ছে রাস্তার কাজটি করার জন্য।

উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল জলিল বলেন, আমি কয়েক দিন হলো যোগদান করেছি। এবিষয় নিয়ে কিছু জানিনা। তবে জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুন

মাসিক আর্কাইভ

© All rights reserved © 2021 vinnabarta.com
Customized By Design Host BD