1. [email protected] : admin : jashim sarkar
  2. [email protected] : admin_naim :
  3. [email protected] : admin_pial :
  4. [email protected] : admin : admin
  5. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
মা-মেয়েকে কোমরে রশি বেঁধে ঘোরানোর ভিডিও ভাইরাল |ভিন্নবার্তা

মা-মেয়েকে কোমরে রশি বেঁধে ঘোরানোর ভিডিও ভাইরাল

vinnabarta.com
  • প্রকাশ : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার হারবাংয়ে একটি গরুর বাছুর চুরি করে সিএনজি অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যাওয়ার আটকের পর তিন নারীসহ পাঁচজনকে পিটিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। তবে এ সময় মা ও মেয়েকে কোমরে রশি বেঁধে মারধর এবং প্রকাশ্যে ঘোরানোর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে শনিবার রাত থেকে।

এ ঘটনায় গরুর মালিক ইউনিয়নের বৃন্দানবনখিলের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মাহবুবুল হক বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে পুলিশ ওই ৫ জনকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে। এ সময় আদালত তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ ছুট্টু (২৭), চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার কুসুমপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের শান্তিরহাট এলাকার শহীদের কলোনির মৃত আবুল কালামের স্ত্রী পারভীন আক্তার (৪০), ছেলে মো. এমরান (২১), মেয়ে সেলিনা আক্তার সেলি (২৮) ও রোজি আক্তার (২৩)। তবে এ সময় অজ্ঞাত সিএনজি অটোরিকশা চালক পালিয়ে যায়। প্রথমজন ছাড়া তিন নারী ও দুই পুরুষ একই পরিবারের সদস্য।

গত শুক্রবার জুমার নামাজ চলাকালে এই গরু চুরির ঘটনা ঘটে এবং সিএনজিতে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে। এ সময় পুলিশ ধৃতদের হেফাজত থেকে উদ্ধার করে চোরাইকৃত গরু, স্প্রের বোতল, ছোরা, স্কচটেপ, মোবাইল, গাড়ির চাবি।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গরু চোরদের আটক করে স্থানীয় অতি উৎসাহী জনতা কর্তৃক পেটানো এবং রশি দিয়ে বেঁধে প্রকাশ্যে হাঁটানোর খবর পাওয়ার পর হারবাং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মিরানুল হক গ্রাম্য চৌকিদার পাঠিয়ে জনতার রোষানল থেকে তাদের উদ্ধার করে পরিষদে নিয়ে আসেন। এর পর হারবাং ফাঁড়ির পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। পিটুনিতে আহত পাঁচজনকেই পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করান। এর পর গরুর মালিক তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রুজু করলে পুলিশ সেই মামলায় তাদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেন।

স্থানীয়রা জানান, অতি উৎসাহী জনতা দুই নারী মা-মেয়েকে কোমরে রশি বেঁধে প্রকাশ্যে হাঁটিয়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় হারবাং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম মিরানকে জড়িয়ে বেশ অপপ্রচার চলছে।

এ প্রসঙ্গে হারবাং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম দাবি করেছেন, যখন গরু চুরির ঘটনা ঘটে তখন তিনি ছিলেন ব্যক্তিগত কাজে চট্টগ্রামের কলাউজানে। অবশ্য ঘটনার খবর পেয়ে গ্রাম্য চৌকিদার পাঠিয়ে জনতার রোষানল থেকে তাদের উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসা হয়। এর পর পরিষদ থেকে মাত্র ২০ গজের মধ্যে থাকা হারবাং ফাঁড়ির পুলিশের কাছে তাদের হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন মাধ্যমে আমাকেও এই ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা হচ্ছে অসৎ উদ্দেশ্যে।’

হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই পারসিত চাকমা বলেন, ‘খবর পেয়ে তিন নারী ও দুই পুরুষকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। এ সময় তাদের হেফাজত থেকে জব্দ করা হয় একটি স্প্রের বোতল, বাট ছাড়া একটি ছোরা, একটি কালো স্কচটেপ, একটি মোবাইল ও গাড়ির চাবি।’

ভাইরাল হওয়া একটি ফুটেজে দেখা যায়, ঘটনার শিকার নারী পারভীন ও এক পুরুষ সদস্য স্থানীয়দের জিজ্ঞাসাবাদে জানান, পাবলিকই তাদেরকে পিটিয়েছেন এবং কোমরে রশি দিয়ে বেঁধে এলাকায় ঘুরিয়েছেন।

চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা গরুর বাছুর চুরি করে সিএনজি অটোয় তুলে পালানোর ঘটনা স্বীকার করেছেন। গরু চুরির বিষয়টি যেমন অপরাধ, তেমনি কাউকে এভাবে রশি দিয়ে বেঁধে প্রকাশ্যে ঘোরানোটাও আইনের দৃষ্টিতে অপরাধ। তাই অতি উৎসাহী কারা এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন, ফুটেজ দেখে তাদেরকে শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। ভুক্তভোগীদের পক্ষে কেউ লিখিত অভিযোগ করলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুন

© All rights reserved © 2021 vinnabarta.com
Customized By ProfessionalNews