শিরোনাম
২০২১ সালের মধ্যেই পিলখানা হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিচার চায় বিএনপিসততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর২৬ বছর আগের মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামির জামিন হলো নাজমে উঠেছে সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচন; ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনাধুনটে স্ত্রীকে হত্যা মামলায় স্বামীর বিরুদ্ধে চার্জশিটশাহজাদপুরে প্রখ্যাত দুই শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হেলাল-ফরহাদের কবর সংস্কারে দাবি, অধ্যক্ষের না!আদালতে খুনিদের লোমহর্ষক জবানবন্দি থাকলেও বাদীর সঙ্গে ৫ লাখে আপোষের অভিযোগ !আ.লীগ নেতা দুই ভাইয়ের সাড়ে ৫ হাজার বিঘা জমি, ৫৫ বাস ক্রোকের নির্দেশধুনটে মেয়র ও কাউন্সিলরদের দায়িত্ব গ্রহন২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪১০

মার্কিন সাংবাদিক হত্যাকারী ওমর শেখকে মুক্তি দিলো পাকিস্তান

ভিন্নবার্তা ডেস্ক:

মার্কিন সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্লকে অপহরণ ও হত্যায় মূল অভিযুক্ত পাকিস্তানের ওমর সাঈদ শেখকে ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট। এর আগে সিন্ধ হাইকোর্টও এই রায়ই দিয়েছিল। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিল সিন্ধু প্রদেশের সরকার। তাদের আরজি খারিজ করে বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের রায়ই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট।

এদিন সুপ্রিম কোর্টে এই মামলার শুনানি হয় তিন বিচারপতির এক বেঞ্চে। বেঞ্চের এক সদস্য ওমর সাঈদের মুক্তির বিরোধিতা করলেও শেষ পর্যন্ত বেঞ্চের তরফে হাইকোর্টের রায়ই অব্যাহত রাখা হয়।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯ সালে কান্দাহারে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান ও বিমানে থাকা যাত্রীরা অপহৃত হওয়ার পর মুক্তিপণের দাবিতে যে জঙ্গিদের ছাড়া হয়েছিল তাদের অন্যতম ছিল ওমর শেখ।
২০০২ সালে পাকিস্তানে এসেছিলেন ব্রিটিশ সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল। আইএসআই ও আল কায়দার মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে তদন্ত করছিলেন তিনি। এরপরই তাকে অপহরণ করে ওমর। তার মাথা কেটে তাকে নৃশংসভাবে খুন করে সে।

এর আগে, ১৯৯৪ সালে চারজন বিদেশি পর্যটককে অপহরণ করে ওমর। তখন সে কাশ্মীরে ছিল। বিচারে সাজা হয় তার। গাজিয়াবাদসহ দেশের বিভিন্ন জেলে থাকতে হয়েছে তাকে। পরে ১৯৯৯ সালে কান্দাহার বিমান অপহরণের সময় তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় নয়াদিল্লি।

ওমর শেখকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। পরে তার প্রাণ ভিক্ষার আরজি মেনে সাজা কমিয়ে সাত বছর করা হয়। ২০২০ সালের ২ এপ্রিল পাক আদালতে শুরু হয়েছিল ওই জঙ্গিদের আপিলের শুনানি। তখনই আদালত ওমরের মৃত্যুদণ্ড রদ করে দেয়। সেই সঙ্গে ২০ লাখ পাকিস্তানি টাকা জরিমানা করা হয় তাকে। যেহেতু এত দীর্ঘ সময় সে কারাবাস করেছে, তাই তার সাত বছরের সাজা এরই মধ্যে পূর্ণ হয়ে গিয়েছে। তাই তাকে ছেড়ে দেওয়ার রায় দিয়েছিল সিন্ধের আদালত। সেই রায়ই বহাল রেখে দিল পাক সুপ্রিম কোর্ট।

সূত্র : আল-জাজিরা

ভিন্নবার্তা ডটকম/এন

আরো পড়ুুন