শিরোনাম

ভক্তদের পদচারণায় মুখর হোসেনী দালান

ভিন্নবার্তা প্রতিবেদক

আশুরা উপলক্ষে রোববার (৩০ আগস্ট) সকাল থেকেই ভক্তদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের হোসেনী দালান চত্বর।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির কারণে এবার শিয়া সম্প্রদায়ের তাজিয়া মিছিল সড়কে বের হবে না। হোসেনী দালান চত্বরেই হবে ঐতিহ্যবাহী এই মিছিল। সকাল থেকেই চলছে তার প্রস্তুতি। ইমামবাড়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, সকাল ১০টার দিকে মিছিল হোসেনী দালান চত্বরে প্রদক্ষিণ করবে।

রোববার (৩০ আগস্ট) সকাল ৯টার দিকে নাজিমুদ্দিন রোড এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, হোসেনী দালান যে সড়কে সে সড়কে প্রবেশের মুখে ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। সড়কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা টহল দিচ্ছেন। হোসেনী দালাল চত্বরে প্রবেশের জন্য মানুষের দীর্ঘলাইন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা একেকজনকে পরীক্ষা করে আর্চওয়ের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করাচ্ছিলেন।

হোসেনী দালাল চত্বরের ভেতরেও অবস্থান নিয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ভেতরে গিয়ে দেখা গেছে, কালো কাবুলি ও পাঞ্জাবি পরা তরুণরা ঘোরাফেরা করছেন। তরুণীদের গায়ে ছিল কাল সালোয়ার কামিজ। হাতে আলাম নিয়ে তারা মিছিলের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। মিছিলে অংশ নিতে এসেছেন বিপুল সংখ্যক নারী। এসেছে শিশুরাও।

ইমামবাড়ার ভেতরে সাজানো হচ্ছিল তাজিয়া। অনেকেই শ্রদ্ধাভরে ছুঁয়ে দিচ্ছিলেন আলামসহ অন্যান্য উপকরণ। তবে কোনো উপকরণ স্পর্শ না করার নিষেধাজ্ঞা সম্বলিত ফেস্টুন দেখা গেছে বিভিন্ন জায়গায়।

অনেকের মুখে ছিল না মাস্ক। স্বাস্থ্যবিধির বালাই খুব একটা চোখে পড়েনি। তবে ভিড় না করার জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের আহ্বান জানিয়ে তৎপর থাকতে দেখা গেছে।

হিজরি ৬১ সনের ১০ মহররম মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.)-এর দৌহিত্র হযরত ইমাম হুসাইন (রা.) কারবালার ফোরাত নদীর তীরে ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে শাহাদাতবরণ করেন।

এই শোক ও স্মৃতিকে স্মরণ করে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বিশেষ মোনাজাত, দোয়া মাহফিল ও কোরআনখানি। বরকতময় এ দিনে এবং একই সঙ্গে আগের বা পরের দিনে রোজা রাখা অনেক পূণ্যের কাজ।

শিয়া সম্প্রদায় আশুরার দিনটিকে বিশেষভাবে পালন করে থাকে। আশুরার দিনে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের হোসেনী দালান থেকে বের হওয়া শিয়াদের তাজিয়া মিছিল ঐতিহ্যবাহী। এ ছাড়াও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিয়ারা তাজিয়া মিছিল বের করে। তবে এবার করোনার কারণে সড়কে বের হচ্ছে না তাজিয়া মিছিল।

ভিন্নবার্তা/এমএসআই

আরো পড়ুুন