শিরোনাম

বঙ্গবন্ধু কর্নারের জন্য বই : ২০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারে বিতরণের জন্য জাতির পিতাকে নিয়ে লেখা ‘নকল বই’ বানিয়ে ২০ কোটির বেশি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, গ্রন্থস্বত্ব ও মেধাস্বত্ব চুরি করে এসব বই তৈরি করা হয়েছে। এ অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

জানা গেছে, বিষয়টি নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা নেবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিষয়টির সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত এ অর্থের চেক ছাড়া হবে না বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর থেকে জানা গেছে।

অন্যদিকে ‘মেধাস্বত্ব চুরির’ দাবি করে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক এবং মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তাকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন সম্পাদক অমিতাভ দেউরী।

জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম আল হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের কাছে অভিযোগ রয়েছে। আমরা মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছি। মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আমার কথা হয়েছে। অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সম্পাদক অমিতাভ দেউরী বলেন, ‘মন্ত্রণালয়, অধিদফতর কিংবা এর সঙ্গে যারা জড়িত তারা কেউ আমাকে জানায়নি। আমি হঠাৎ করে জানতে পারলাম, আমার নাম-মেধাস্বত্ব যেভাবে সংরক্ষিত ছিল তা আর নেই। সাম্প্রতিক যে প্রকাশনা বইগুলো বের করেছে সেখানে আমার সে অধিকার নেই। আমি আমার অধিকার ফিরে পেতে চাই। এজন্য আমি যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত।’ দুই মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের সংশ্লিষ্টদের লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন বলেও জানান এ সম্পাদক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, অর্থ ছাড়ের জন্য মন্ত্রণালয়ের লিখিত নির্দেশ না হলে অধিদফতর অর্থের ছাড় করবে না। অন্যদিকে বিষয়টি খতিয়ে না দেখে মন্ত্রণালয় লিখিত নির্দেশও দেবে না অর্থ ছাড়ের জন্য।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ জেল থেকে প্রকাশিত বঙ্গবন্ধু বিষয়ক দুটি বইয়ের মেধাস্বত্ব ও গ্রন্থস্বত্ব ‘চুরির’ অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, এ চুরির মাধ্যমে ১৭ কোটি ৫৭ লাখ ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রকাশনা সংস্থা ‘জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেড’।

এছাড়া ‘স্বাধীকা পাবলিশার্স’ নামের একটি প্রকাশনা হাতিয়ে নিচ্ছে আরও ৩ কোটি ১৩ লাখ ৩৮ হাজার ৯০০ টাকা। মুজিববর্ষে দেশের ৬৫ হাজার ৭০০ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ‘বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারের’ জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের বই কেনা প্রকল্পে এই দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ মতে, প্রকল্পের মোট ২৮ কোটি ৭৮ লাখ ১২ হাজার ২০০ টাকার মধ্যে ২০ কোটি ৭০ লাখ ৮৬ হাজার ৪০০ টাকাই পাচ্ছেন দুটি প্রতিষ্ঠানের নামে একই ব্যক্তি।

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুুন