শিরোনাম

প্রবাসীদের চিন্তা করতে না বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভিন্নবার্তা, ঢাকা :

করোনা ভাইরাসের কারণে দেশে আসা প্রবাসী শ্রমিকদের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। বৃহস্পতিবার রাতে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেন, সৌদি আরব, আরব আমিরাত, কাতার, কুয়েত, ইরাকের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেছি। সৌদি আরবে আপাতত শুধুমাত্র ওমরা ভিসা বন্ধ করা হয়েছে। যারা দেশে এসেছেন, কিন্তু আপাতত যাচ্ছেন না, তাদের প্রত্যেকের ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে। পরে গিয়ে কাজে যোগদান করতে পারবেন। বাংলাদেশের জন্য কোনো ধরনের বাধ্যবাধকতা দেয়নি সৌদি আরব। তবে ১৫ দিন পর্যবেক্ষণে থাকতে হবে। বাংলাদেশ থেকে সরাসরি বিমানে সৌদি আরবে যেতে হবে। অন্য কোনো দেশ হয়ে যাওয়া যাবে না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশিদের ক্ষেত্রে কোনো বাধ্যবাধকতা দেয়নি। কাতার ১৪টি দেশের বিমান বন্ধ করে দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশিরা কিছুদিন পরে যেতে পারবেন। তাদেরও ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে। তারা তাদের ওয়ার্ক পারমিটের কোনো ধরনের ঝামেলায় পড়বেন না। যারা নতুন কাজে যোগ দিতে যাবেন তাদেরও কোনো ঝামেলা হবে না। কুয়েত আপাতত সব দেশের ফ্লাইট বন্ধ রেখেছে। কিন্তু কুয়েত থেকে যারা এদেশে এসেছেন কিংবা পরে যাবেন তাদের কাজকর্মের কোনো সমস্যা হবে না। আমাদের প্রবাসী শ্রমিকদের বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে সার্টিফিকেট নেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই।

বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের উদ্দেশ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা বর্তমানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন, আপনারা যে দেশে আছেন, তাড়াহুড়ো করে দেশে আসার কোনো প্রয়োজন নেই। এখন সারা পৃথিবীতেই সমস্যা দেখা দিয়েছে। আপনারা যে যে দেশে রয়েছেন আপনারা সেই দেশের নিয়ম কানুন মেনে চলেন। ওইসব দেশের যেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে সেগুলো মেনে চলুন। কোনো ধরনের সমস্যা হলে আমাদের দূতাবাসে যোগাযোগ করবেন। আমাদের সবগুলো মিশন ২৪ ঘণ্টা খোলা রয়েছে। তাড়াহুড়ো করে দেশে আসার কোনই প্রয়োজন নেই। কারণ দেশে আসলে এখন ১৪ দিন পর্যবেক্ষণে থাকতে হবে, কোথাও যেতে পারবেন না, কারো সাথে দেখা সাক্ষাৎ করতে পারবেন না।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ভিসা বন্ধ করে দিচ্ছে বাংলাদেশ এমন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করবে কি-না এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা চারটা দেশের অন-অ্যারাইভাল ভিসা বন্ধ করে দিয়েছি। চীন, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া ও ইতালি এসব দেশে যথেষ্ট পরিমাণে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সার্বক্ষণিক কথা বলছি, তারা যদি আমাদের কোন দেশ সম্পর্কে রিকমেন্ড করে, তাহলে আমরা সেই দেশের বিষয়ে বিবেচনা করবো।

এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান হোসেন এবং বিদেশি দূতাবাসগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌদি আরব, আরব আমিরাত, কাতার, কুয়েত ও ইরাকের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেন।

ভিন্নবার্তা/এমএসআই

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
আরো পড়ুুন