1. naim@vinnabarta.com : admin_naim :
  2. admin_pial@vinnabarta.com : admin_pial :
  3. admin-1@vinnabarta.com : admin : admin
  4. admin-2@vinnabarta.com : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  5. admin-3@vinnabarta.com : Saidul Islam : Saidul Islam
  6. jashimsarkar1980@gmail.com : admin : jashim sarkar
  7. admin@admin.com : happy :
প্রথম দুই ওভারে উইকেট নিলেন মোস্তাফিজ-শরিফুল - |ভিন্নবার্তা




প্রথম দুই ওভারে উইকেট নিলেন মোস্তাফিজ-শরিফুল

ভিন্নবার্তা প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২ ৬:০২ pm

প্রিয় ওয়ানডে ফর‌ম্যাটে ফিরতেই আধিপত্য বিস্তারে শুরু বাংলাদেশের। প্রথম ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে ৩০৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেওয়ার পর প্রথম দুই ওভারেই উইকেট তুলে নিয়েছে সফরকারী দল। ৩ ওভার শেষে ২ উইকেটে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ১৪ রান। ক্রিজে আছেন ওয়েসলি মাধেভেরে (২) ও ইনোসেন্ট কাইয়া (৪)।

মোস্তাফিজুর রহমানের শুরুর ওভার দেখে-শুনে খেলতে থাকলেও রক্ষে হয়নি ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক রেজিস চাকাভার (২)। ওভারের শেষ বলে অফস্টাম্পের বাইরের বল খেলতে গেলে ব্যাটের কানায় লেগে সেটি আঘাত করে স্টাম্পে। শরিফুলের পরের ওভারে চার মেরে শুরুতে জবাব দিলেও পঞ্চম বলে সাজঘরের পথ ধরেন তারিসাই মুসাকান্দা। উঠিয়ে মারতে গেলে ৪ রানে তালুবন্দি হন মোসাদ্দেকের।

শুক্রবার হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে টস হারলেও নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২ উইকেটে ৩০৩ রান করে বাংলাদেশ। স্বাগতিক বোলারদের পরীক্ষা নিয়ে চমৎকার ব্যাটিংয়ে ফিফটি পেয়েছেন- লিটন, এনামুল, তামিম ও মুশফিক। মাহমুদউল্লাহর অপরাজিত ২০ রান ধরলে ব্যাট করা পাঁচজনই গিয়েছেন দুই অঙ্কের ঘরে।

দারুণ শুরুতে শক্ত ভিত এনে দেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। দুজনই পেয়েছেন হাফসেঞ্চুরি। এই হারারেতে খেলা সবশেষ ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন তামিম। এক বছর পর সেখানে ফেরার উপলক্ষটা শতক দিয়ে রাঙিয়ে নেওয়ার সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। তবে পারেননি।

জিম্বাবুয়েকে প্রথম উইকেট এনে দিয়েছেন সিকান্দার রাজা। সফরকারী দুই ওপেনারের দাপটে কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল স্বাগতিকরা। তামিম-লিটন ক্রিজে পড়ে থেকে একটু একটু করে বাড়িয়ে নিচ্ছিলেন রান। এরমধ্যে তামিম পেয়ে যান ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৫৪তম হাফসেঞ্চুরি। সিকান্দার রাজার বলে ইনোসেন্ট কাইয়ার হাতে ধরা পড়েন তিনি। ফেরার আগে ৮৮ বলে ৯ বাউন্ডারিতে করেন ৬২ রান।

বাংলাদেশ অধিনায়ক তিন অঙ্কের ঘরে যেতে না পারলেও লিটন কিন্তু এগিয়ে গেছেন। যদিও শুরুটা ছিল মন্থর। সময় গড়ানোর সঙ্গে চওড়া হতে থাকে ব্যাট। দুর্ভাগ্য তার এই পথ চলায় বাধা হয়ে দাঁড়ায় চোট! পায়ের পেশিতে টান লাগায় রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন এই ওপেনার।

উদ্বোধনী জুটিতে তামিমের সঙ্গে ১১৯ রানের জুটি গড়েন লিটন। তামিমের আউটের পর এনামুলের সঙ্গে ৫০ বলে ৫২ রানের জুটি গড়েন তিনি। আর নিজে বাহারি সব শটে ৮৯ বলে ৮১ রান করেছেন। বিশেষ করে ৭৫ বলে হাফসেঞ্চুরি ছোঁয়ার পর থেকেই আক্রমণ বাড়াতে থাকেন। হাফসেঞ্চুরির পর শেষ ১৪ বলে তোলেন ৩১ রান।

লিটনের আউটের পর স্কোর বাড়িয়ে নেওয়ার মিশনে নামেন এনামুল। ঘরোয়া ক্রিকেটে রানের বন্যা বইয়ে দেওয়া এই ব্যাটার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও নিজের সামর্থ্য দেখালেন। তিন বছর পর ওয়ানডেতে ফিরে পেলেন হাফসেঞ্চুরির দেখা। সেঞ্চুরির সম্ভাবনাও জাগিয়েছিলেন। কিন্তু ৭৩ রানে থামতে হয় তাকে। অভিষিক্ত ভিক্টর নিয়াউচির শিকার হওয়ার আগে ৬২ বলের ইনিংসটি সাজান ৬ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায়।

অন্যপ্রান্তে তাকে সঙ্গ দেওয়া মুশফিকও কম যাননি। জিম্বাবুয়েতে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বিশ্রামে থাকা এই ব্যাটার ওয়ানডে দিয়ে ফিরেই করলেন হাফসেঞ্চুরি। ৪৯ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। অন্যদিকে শেষ দিকে নেমে মাহমুদউল্লাহ ১২ বলে ৩ বাউন্ডারিতে অপরাজিত থাকেন ২০ রানে।

জিম্বাবুয়ের দুই বোলার- নিয়াউচি ও রাজা প্রত্যেকে নিয়েছেন একটি করে উইকেট।
ভিন্নবার্তা ডটকম/এন



আরো




মাসিক আর্কাইভ