শিরোনাম

নড়াইলে চিকিৎসকদের সংবাদ সম্মেলন

মো. আল আমিন, নড়াইল

নড়াইলের উজিরপুর এলাকায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে সদর হাসপাতাল কর্তৃক মেডিকেল রির্পোটকে কেন্দ্র করে চিকিৎসকদের সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল দুপুরে নড়াইল সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা নড়াইল প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন করে।

সংবাদ সম্মেলনে সদর হাসপাতালের আরএমও ডাঃ মশিউর রহমান বাবু জানান, ৩০ আগষ্ট নড়াইল শহরের উজিরপুর এলাকায় চার বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ এনে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ভূক্তভোগিকে সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনা হয়। পরদিন হাসপাতালের মহিলা চিকিৎসকের নেতৃত্বাধীন একটি মেডিকেল বোর্ড পরীক্ষা নিরিক্ষা করে ধর্ষণের আলামত না পাওয়ার রির্পোট পেশ করা হয়। কিন্তু এ ব্যাপারে ভিকটিমের পক্ষের শহরের রাসেল বিল্লাহ নামে এক ব্যক্তির নেতৃত্বে অর্থের বিনিময়ে মেডিকেল রির্পোট পরিবর্তনের অভিযোগ শহরে একটি মানববন্ধন করা হয়।

এতে চিকিৎসক সমাজের মান সম্মান ক্ষুন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, ৪টি ধাপ অতিক্রম করে একটি মেডিকেল টিম এ ধরনের রির্পোট প্রদান করে। এটি কারো ব্যাক্তিগত ইচ্ছাই হয় না। তিনি এ ধরনের মন্তব্যের তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং মানহানীর মামলা করতে পারেন বলে জানান। তিনি আরও বলেন, রাসেল বিল্লাহ মাশরাফির হাতে গড়া সেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’ এবং ‘তারুণ্য হানড্রেড’ এর নাম ভাঙ্গিয়ে আমাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করে রিপোর্টটি তাদের পক্ষে নেওয়ার জন্য।

সংবাদ সম্মেলনে সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ সুব্রত নাগ জানান, ঘটনার দিন আমি মেডিকেল অফিসার হিসেবে ইর্মাজেন্সি ডিউটিতে ছিলাম। তখন রাসেল বিল্লাহসহ কয়েকজন আমাদেরকে চাপ দিয়ে শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে এ ধরনের একটি বক্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করে।

সংবাদ সম্মেলনে গাইনি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ সুব্রত কুমার বাগচি, প্যাথলজি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ সুজল কুমার বকশি, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা বিশেষজ্ঞ ডাঃ আলিমুজ্জামান সেতু, ডাঃ কেয়া, হাসপাতালের সিনিয়র ষ্টাফ নার্স অনিমা দাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ৩০ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে উজিরপুর এলাকার অপু বিশ্বাস (২৩) প্রতিবেশী ৪ বছরের এক শিশুকে মোবাইল ফোনে ছবি দেখানোর প্রলোভনে বাড়ির পাশের নির্জন বাগানের ঝোপে নিয়ে ধর্ষণ করে। রাতে খাবার খাবার সময় শিশুটি মাকে বিষয়টি জানায়। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে শিশুকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলার একমাত্র আসামি গ্রেফতারকৃত অপু বিশ্বাসের জামিনের আবেদন করা হলে আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করেন এবং জেলা ও দায়রা জজ নিলুফার শিরিন ওই রোগির চিকিৎসা সংক্রান্ত যাবতীয় নথিপত্র সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে চেয়ে পাঠিয়েছেন। এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের আরএমও ডাঃ মশিউর রহমান বাবু বলেন, এ ধরনের কোনো নোটিশ আমরা এখনও হাতে পাইনি।

এদিকে শিশির রঞ্জন বিশ্বাসের পূত্র অভিযুক্ত অপু বিশ্বাসের ভাই সজিব বিশ্বাস জানান, ঘটনার রাত দেড়টার দিকে দিকে রাসেল বিল্লাহ ও সাকিব মোল্যা তাদের বাড়িতে একটি প্রাইভেট কার নিয়ে যায়। এ আমাকে সাকিব বলে তোমার ও তোমার বাবার নামে মামলা দেওয়া হয়নি। তুমি রাসেলের সাথে আলাদাভাবে কথা বলো। আমার কাছে মনে হয়েছে সে টাকার কথা ইংগিত করছিল। তখন আমি বলেছি আমরা নির্দোষ। এ ব্যাপারে কারো সাথে কথা বলতে পারব না।

ভিন্নবার্তা/এসআর

 

 

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
আরো পড়ুুন