1. [email protected] : admin : jashim sarkar
  2. [email protected] : admin_naim :
  3. [email protected] : admin_pial :
  4. [email protected] : admin : admin
  5. [email protected] : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. [email protected] : Saidul Islam : Saidul Islam
নেত্রকোনায় আয়কর কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ - |ভিন্নবার্তা

নেত্রকোনায় আয়কর কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

vinnabarta.com
  • প্রকাশ : সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ০৭:০৯ pm

নেত্রকোনা সদর উপজেলার মেদনী ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামের আয়কর কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুল শহীদের বিরুদ্ধে গ্রামে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। নিশ্চিন্তপুর গ্রামের মো. মিরাজ আলী, মো. নজরুল, আবদুল হামিদ, মো. রফিকুল ইসলাম, মো. বাবুল মিয়াসহ ৩৬জন গ্রামবাসী রোববার জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগের অনুলিপি দেয়া হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনার, উপ পরিচালক দুর্নীতি দমন কমিশন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নেত্রকোনা সদর,জেলা প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন দপ্তরে।

অভিযোগে জানা গেছে,সদর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামে ২০০৮ সালে এলাকাবাসী মিলে ফাতিমাতুয্ যাহ্রা (রাঃ) মহিলা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। পরবর্তী সময়ে আয়কর কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুস শহীদ ও তার ভাই কাজী মো. আবদুল মান্নানের মাধ্যমে কৌশলে মাদ্রাসায় সাহায্য সহযোগিতার আশ্বাসে সভাপতি পদ প্রাপ্ত হন। আবদুস শহীদ সভাপতি হওয়ার পর থেকে মাদ্রাসার আয় ব্যায়ের হিসাব ও অগ্রগতি কমিটির সদস্যদের প্রকাশ করেন না এবং ওই মাদ্রাসায় তার বাবার নামে এতিমখানা চালু করেন। এতিমখানা ও মাদ্রাসার নামে কর্মস্থলে আয়করদাতার নিকট থেকে কম কর ধার্যের শর্তে টাকা নেন। এতে করে সরকার ক্ষতিগ্রস্ত ও সরকারি কোষাগারে অপেক্ষাকৃত কম টাকা জমা হয়।

মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্যদের আপত্তি উপেক্ষা করে এলাকাবাসী ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দেয়া অর্থে প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসার জায়গা পরিবর্তন করে নিজের জায়গায় মাদ্রাসাটি স্থানান্তর করেন। সাহায্যের টাকা ও নিজের অর্থ দিয়ে স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিষ্ঠানটি তার ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিনত করেন। মাদ্রাসার প্রথম প্রতিষ্ঠিত স্থান ক্রয় দেখিয়ে ওয়াকফ্ করে দেননি তিনি। অথচ দাতা সদস্যদের কাছ থেকে ওয়াকফ্ করিয়ে নিয়েছেন। মাদ্রাসায় আবাসিক ও অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিয়মিত বেতন আদায় করে মাদ্রাসার খরচ নির্বাহ করছেন। এর পরও এলাকাবাসী ও দূর দূরান্তের ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা নিচ্ছেন। যার হিসাব তার পকেটে থাকা দু’একজন ব্যক্তি ছাড়া কেউ জানে না। এলাকাবাসীর সাহায্য সহযোগিতায় গড়া প্রতিষ্ঠানটি আবদুস শহীদের অনুগত পকেট কমিটির মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে।

আয়কর কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুল শহীদ সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,এলাকায় কতিপয় লোক নিজেদের হীন স্বার্থে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। নিয়মতান্ত্রিকভাবে মাদ্রাসা পরিচালনা করা হচ্ছে। মাদ্রাসা পরিচালনার ক্ষেত্রে কোন ধরনের অনিয়ম নেই।

এ ব্যাপারে নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক কাজি মো. আবদুর রহমান জানান, অভিযোগের বিষয়টি তার কাছে পৌছেনি। খোঁজ নিয়ে দেখে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

ভিন্নবার্তা/এসআর

আরো পড়ুন

মাসিক আর্কাইভ

© All rights reserved © 2021 vinnabarta.com
Customized By Design Host BD