1. jashimsarkar1980@gmail.com : admin : jashim sarkar
  2. naim@vinnabarta.com : admin_naim :
  3. admin_pial@vinnabarta.com : admin_pial :
  4. admin-1@vinnabarta.com : admin : admin
  5. admin-2@vinnabarta.com : Rumana Jaman : Rumana Jaman
  6. admin-3@vinnabarta.com : Saidul Islam : Saidul Islam
ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়ার শঙ্কা - |ভিন্নবার্তা




নগরবাসীকেই দুষছেন দুই সিটি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়ার শঙ্কা

শফিকুল ইসলাম :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২ ৬:৩৬ pm

রাজধানীর মুগদা এলাকায় একই বাড়ির প্রায় ১৪ জন লোক ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। চিকিৎসা নেয়ার পর তারা সবাই এখন মোটামুটি সুস্থ রয়েছেন। এছাড়া, ওই বাড়ির আশপাশে অনেকেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। এরআগে তারা কেউ একসাথে এভাবে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়নি। এভাবে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিন কেউ না কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছে। সর্বশেষ বুধবার ২৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর আগের দিন একজনের মৃত্যু হয়েছে। আর চলতি বছর এই প্রথম কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তবে ডেঙ্গু মোকাবেলায় এডিস মশা নিধনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তবুও কমছে না ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা। দ্রুত ডেঙ্গু নিধনে কঠোর পদক্ষেপ না নিলে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়ার আশঙ্কা করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানী ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। বুধবার ২৭ জন আক্রান্তসহ চলতি বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩৫ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন ৬৯৭ জন। তাছাড়া, বর্তমানে ঢাকার ৪৭টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি আছেন ১১৩ জন এবং ঢাকার বাইরে ভর্তি আছেন পাঁচজন।

এমতাবস্থায় দুই সিটি কর্পোরেশন মশক নিধনের পাশাপাশি জনসচেতনতার উপর জোর দিয়েছে। বিভিন্ন ওয়ার্ডের মানুষকে সচেতন করতে ইতিমধ্যে কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে কমিটিও করে দেওয়া হয়েছে। কমিটিগুলো এলাকাবাসীকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে সচেতন করছে। দুই সিটির বাহিরেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঢাকাসহ সারাদেশে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সচেনতামূলক কার্যক্রম চালাচ্ছে। এর পাশাপাশি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগেও চলছে সচেনতামূলক কার্যক্রম। এ বিষয়ে টেলিভিশন ও পত্রিকায় সতর্কতামূলক বিজ্ঞাপনও দেওয়া হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরাও বলছেন, অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে চলতি বছর ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ আরো বাড়তে পারে। তাই আগে থেকেই এ বিষয়ে দুই সিটিকে ব্যাপকভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। একইসঙ্গে ডেঙ্গু রোগের মূল শক্তি এডিস মশার লার্ভা ধ্বংসের উপর আরো জোর দিতে হবে। তৈরি করতে হবে ব্যাপক জনসচেতনতা। না হয় ডেঙ্গুতে ব্যাপকহারে আক্রান্ত ও মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে। নগরবাসীর অভিযোগ, প্রতিবছর নগরীতে এডিস মশার কামড়ে আমরা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছি। এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মাঝেমধ্যে অভিযান পরিচালনা করা হলেও কাজের কাজ তেমন কিছুই হচ্ছে না। তবে কোন বাড়িতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলে সেখানে ওষুধ ছিটানোসহ নানা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা চাই প্রতিটি এলাকার বাড়িতে এভাবে ওষুধ ছিটানো হোক। তাহলে পুরোপুরি ডেঙ্গুমুক্ত হবে নগরী।

জানা গেছে, এডিশ মশার লার্ভা ধ্বংসে দুই সিটি বিভিন্ন ক্রাশ প্রোগ্রাম হাতে নিয়েছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ওয়ার্ডগুলোতে বেশি জোর দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ভবনে দুই সিটি নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে। বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তাতেও তেমন একজা কাজ হচ্ছে না।

তবে দুই সিটির সংশ্লিষ্ট বিভাগের অভিযোগ, এ বিষয়ে নগরবাসীর রয়েছে চরম উদাসীনতা। দুই সিটির পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছে বাসাবাড়ির আঙ্গিনা সব সময় পরিস্কার রাখতে, ছাদে বা বাড়ির আশপাশে বৃষ্টির পানি যাতে না জমে, এছাড়া, এসি, ফ্রিজের পানি যাতে না জমে সে বিষয়ে নজর রাখতেও বলা হচ্ছে। কিন্তু এ কথা শুনছে না তারা। যার কারণে এসব স্থান থেকে এসিড মশা জন্ম নিচ্ছে আর তার কামড়ে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছে অনেকে। সম্প্রতি দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে মেয়রও সচেনতামূলক কার্যক্রমের উপর জোর দিয়েছেন। সভায় উপস্থিত আবাসন ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাবের প্রতিনিধিকে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, রিহ্যাব যেসব ভবন নির্মাণ করে সেগুলোর সেফটি ট্যাংকসহ নানা স্থানে এডিস মশার লার্ভা বেড়ে ওঠার মতো পরিবেশ থাকে।

এগুলো ঠিক করতে হবে। রিহ্যাব সদস্যদের এ ব্যাপারে সচেতন করতে বলেন মেয়র।এছাড়া, ডেঙ্গু নিধনে নানা কার্যক্রমের পাশাপাশি নগরবাসীকে সচেতন করতে প্রায় পথসভা ও লিফলেট বিতরণ করছেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম। এসব সভায় তিনি নাগরিকদের বোঝাচ্ছেন ডিএনসিসির একক প্রচেষ্টায় ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে নগরবাসীর সচেতন হতে হবে।



আরো




মাসিক আর্কাইভ