শিরোনাম

সম্পাদকীয়
করোনায় নিরাপদ থাকতে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান করোনা ভাইরাস নিয়ে সকলকে সচেতন ও সতর্ক হতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তাতে তিনি জানিয়েছেন, তিনি এই ভাইরাসকে ভয় পাচ্ছেন, সত্যিই ভয় পাচ্ছেন। শুধু সামিয়া রহমানই নন, গোটা বিশ্ব এই ভাইরাসকে নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে উদ্বেগ থাকলেও এতো সিরিয়াসলি ভয় ছিল না, কিন্তু ভাইরাসে আক্রান্তের খবর সরকারের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করার পর মানুষের মধ্যে ভয় ঢুকে গেছে। ১৮ মার্চ এই ভাইরাসে বাংলাদেশের একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার খবর প্রকাশিত হওয়ার পর মানুষ মহাআতঙ্কে রয়েছে। যে যার সঙ্গেই কথা বলুক বা কাজে যাক না কেনো সবার মধ্যেই এক অজানা আতঙ্ক কাজ করছি।

এক শ্রেনী মানুষ এই ভাইরাসকে নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে। ১৭ মার্চ কে বা কারা গুজব ছড়িয়েছে ‘থানকুনি পাতা’ খেলে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হয়ে যাবে। এই গুজব মুহূর্তেই সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। গ্রাম ও শহরে এই ছড়িয়ে পড়া গুজবের ফলে দেশের অনেক স্থানেই থানকুনি (স্থানীয় নাম) পাতা সংগ্রহের হিড়িক পরে গেছে। প্রকৃতপক্ষে এর কোনো বাস্তবতা নেই, নেই কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশে যে ১৪ জন আক্রান্তের তথ্য সরকারিভাবে প্রকাশিত হয়েছে, তাদের সুস্থ করে তুলতে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। কেউ বসে নেই। জনগণ সরকারকে সহযোগিতা না করলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহতার দিকে যেতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। সে কারণে এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণের প্রধান হাতিয়ার হচ্ছে সরকারের এই সংক্রান্ত নির্দেশনা মেনে চলা। নিজে সচেতন হওয়া, অন্যকে সচেতন করে তোলা। এটি সম্ভব হলে আমরা অন্য দেশের তুলনায় করোনাভাইরাসকে সফলভাবে মোকাবেলা করতে পারবো।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
আরো পড়ুুন